• প্রবল বর্ষণে ভূমি ধসে নিহত ১, আহত ২
  • দুদিনের বিরামে পুনঃবন্যায় রাজ্যের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি
  • সপ্তাহে একবার চলবে আগরতলা-দেওঘর ট্রেন পরিষেবা রাজধানী থামবে আমবাসায়
  • বারিতে ঢুকে এক যুবতির শ্লীলতাহানি, অভিযোগ উঠে তিনজনের বিরুদ্ধে
  • অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মচারীর রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্তে পুলিশ
  • সহকর্মীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠলো এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে
  • থানা চত্তরে পুলিশ কর্মীর মৃত্যু ঘিরে সন্দেহ
  • রাজ্যে প্রশাসনের বিভিন্ন জায়গায় বেআইনি পার্টি অফিস উচ্ছেদ অভিযান জারি
  • রেল থেকে নামতে গিয়ে গুরুতর আহত এক রেলকর্মী
  • মতিনগর এলাকা থেকে এক হাজার কেজি গাঁজা উদ্ধার
  • কংগ্রেসের প্রভাবহীন আন্দোলন কর্মসূচি
  • স্কোয়াশে রাজ্যের ব্যপক সাফল্য
  • বিদ্যুৎ সম্প্রসারণে কেন্দ্রের সবধরনের সহযোগীতার আশ্বাস ত্রিপুরাকে
  • আবার আইপিএফটি'র সমর্থকদের উন্মত্ত আচরণ
  • মার্কলাইন কন্সাল্টেন্সির কাউন্সিলিং শুরু আগামী ১৮ মে থেকে রাজ্যের ৩টি মহকুমায়
  • নাবালিকার শ্লীলতাহানি, গ্রেপ্তার নাবালক
  • দূর্গাপুর গ্রামের সীমান্তে কাঁটাতারের বেরা ইস্যুতে সোনামুড়ায় আজ ১২ ঘণ্টা বনধ
  • তেলিয়ামুড়ায় ধৃত বাইক চোর দম্পতি, উদ্ধার প্রচুর ব্রাউন সুগার
  • নাগেরজলা শ্রমিক সংঘর্ষ, উত্তেজনা চরমে
  • জোটে কাটল ঘন মেঘের ঘনঘটা
  • লেইকের জলে ডুবে মৃত্যু এক কিশোরের
  • এক নাবালিকার শ্লীলতাহানী, শিক্ষক পলাতক
  • আগরতলা-কলকাতার রেলে যাতায়তের সময়সীমা কমবে আরো ১০ ঘণ্টা
  • জিবির সেন্ট্রাল ল্যাবের কেলেঙ্কারির রিপোর্ট পেশ করার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

লাইফস্টাইল

00310
0057
0057
0057
0057
সন্তানদের বৃদ্ধি না হওয়ার বিভিন্ন কারণ এবং তার চিকিৎসার সমন্ধে জেনে নিন

৯ এপ্রিল (এ.এন.ই ): বামনত্ব এক ধরনের শারীরিক সমস্যা। এটা পারিবারিক কারণে যেমন হতে পারে, তেমনি অপুষ্টি বা নানা রোগের কারণেও মানুষ বামনত্বের কবলে পড়তে পারে। এর বিজ্ঞানভিত্তিক চিকিৎসা আছে। বিশ্বখ্যাত ফুটবলার লিওনেল মেসিও ছোটবেলায় বামনত্বে আক্রান্ত হয়েছিলেন এবং দীর্ঘদিন চিকিৎসার আওতায় ছিলেন। সফল চিকিৎসার কারণেই বিশ্ব আজ তাঁর মতো খেলোয়াড় পেয়েছে। কিন্তু শারীরিক বৃদ্ধি ব্যাহত হওয়ার কারণ, সমস্যা নির্ণয় ও এর চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে আমাদের দেশের বেশির ভাগ মানুষ এখনো রয়েছে অন্ধকারে। যদিও এসব সমস্যার সফল চিকিৎসা এখন আমাদের দেশেও সুলভ। কী করে বুঝবেন আপনার শিশু বাড়ছে না: একটি শিশু যদি তার সমবয়সীদের তুলনায় কম উচ্চতাসম্পন্ন হয়, তবেই অভিভাবকরা এ নিয়ে চিন্তিত হতে পারেন। জেনে রাখুন একেক বয়সে উচ্চতা বৃদ্ধির হার একেক রকম। দুই বছর বয়স পর্যন্ত শিশু বছরে ২০ থেকে ৩০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। এরপর এ হার কমে আসে এবং ৫-৬ বছর বয়স পর্যন্ত এই হার বার্ষিক ১০-১২ সেন্টিমিটার হয়। ৬-৭ বছরে আরো কমে বছরে ৫-৬ সেন্টিমিটার হারে বাড়ে। আবার বয়ঃসন্ধিকালে হঠাৎ করেই লম্বা হওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পায় এবং বছরে ১০-১৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বাড়তে থাকে। ১৪-১৫ বছরের পর থেকে বৃদ্ধির হার আবারও কমতে থাকে, গড়ে ১ সেন্টিমিটার হারে বেড়ে চলে ১৯ থেকে ২১ বছর বয়স পর্যন্ত। এরপর বৃদ্ধি থেমে যায়। শিশুর বৃদ্ধি কেন ব্যাহত হয়: একটি শিশুর শারীরিক ও মানসিক বৃদ্ধি অনেকটাই যেমন জিন ও পরিবেশগত বিষয়ের ওপর নির্ভর করে তেমনি নির্ভর করে তার সার্বিক সুস্থতা ও হরমোনের ওঠানামার ওপর। একেক এলাকায় ও একেক পরিবারে উচ্চতার প্রবণতা একেক রকম। এছাড়া শৈশবে কোনো দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা, যেমন কিডনি বা ফুসফুসের রোগ, অপুষ্টি, হজমের গোলমাল ইত্যাদি কারণে শিশুর বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। শরীরের প্রায় সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের বৃদ্ধি যে হরমোনগুলো নিয়ন্ত্রণ করে তার মধ্যে থাইরয়েড ও গ্রোথ হরমোন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এ হরমোনগুলোর অভাবে শারীরিক ও মানসিক বৃদ্ধি থমকে যেতে পারে বা ধীর হতে পারে। নানা ধরনের জেনেটিক সমস্যায় মানুষ খাটো হয়, যেমন টার্নার বা ডাউন সিনড্রোমে। বৃদ্ধি প্রতিবন্ধকতা কী কী সমস্যার সৃষ্টি করে: ঠিকমতো বৃদ্ধি না হলে একটি শিশু নানা ধরনের শারীরিক ও মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হয়। অনেক সময় এর সঙ্গে যৌবনপ্রাপ্ত না হওয়ার সমস্যাও দেখা দেয়, যা পরে তার বিবাহ, সন্তান ধারণ বা পারিবারিক জীবনকে ব্যাহত করে। এছাড়া খাটো শিশুরা টিজিং ও বুলিংয়ের শিকার হয় বেশি, সমাজে একঘরে হয়ে পড়ে, শিক্ষা বা কর্মক্ষেত্রে অনেক সময় মেধা থাকা সত্ত্বেও পিছিয়ে পড়ে। বৃদ্ধি প্রতিবন্ধকতার চিকিৎসা: কৃত্রিম গ্রোথ হরমোন আবিষ্কৃত হওয়ার আগে বামনাকৃতি শিশুদের চিকিৎসা ছিল দুর্লভ। কেননা তখন মৃতদেহের পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে হরমোন নির্যাস সংগ্রহ করা হতো এবং এতে প্রায়ই প্রতিক্রিয়া ও নানা রোগের আশঙ্কা থাকত। ১৯৮৫ সালে এ পদ্ধতি বাতিল হয় এবং বর্তমানে কৃত্রিম গ্রোথ হরমোন সোমাট্রপিন বা নরডিট্রোপিন দিয়ে সাফল্যের সঙ্গে এর চিকিৎসা করা হচ্ছে। বর্তমানে যে কয়েকটি সমস্যায় গ্রোথ হরমোন থেরাপি ব্যবহৃত হয় তা হলো- ১. বৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত শিশু, যার গ্রোথ হরমোন অপর্যাপ্ত ২. টার্নার সিনড্রোম ৩. কম ওজন ও ছোট আকার নিয়ে ভূমিষ্ঠ শিশু ৪. কিডনি জটিলতায় আক্রান্ত হওয়ার কারণে যাদের বৃদ্ধি বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট বয়স পর্যন্ত প্রতিদিন রাতে নির্দিষ্ট মাত্রার গ্রোথ হরমোন ইনজেকশন দেওয়া হয় এবং পর্যবেক্ষণ করা হয়। গ্রোথ হরমোনের সমস্যা ছাড়া বৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হওয়ার অন্য কোনো কারণ থাকলে সঠিক কারণটি নির্ণয় করে সে অনুযায়ী দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। তবে দুটি বিষয় মনে রাখা জরুরি। এক. সঠিক সময়ে রোগ নির্ণয় ও পরামর্শ নেওয়া, দুই. যত কম বয়সে চিকিৎসা শুরু করা যায় ততই ভালো ফল পাওয়া যায়। কৈশোর বা তারুণ্যে এসে উচ্চতা বৃদ্ধি কি সম্ভব? উচ্চতা সমস্যা নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি হয় আমাদের দেশে কৈশোরে বা তারুণ্যে এসে। যখন একটি তরুণ বা তরুণী দেখে যে সে আর দশজনের মতো নয়, এ সময় এরা উচ্চতা বাড়ানোর কৌশল হিসেবে নানা বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয় এবং নানা ধরনের অবৈজ্ঞানিক চিকিৎসার আশ্রয় নেয়। আমাদের হাড়ের উচ্চতা তত


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.