• চলে গেলেন বামফ্রন্টের আভ্যায়ক খগেন দাস
  • নির্বাচন কমিশনের কাছে বিজেপির একগুচ্ছ দাবি
  • কর্মচারীদের কাজ থেকে নির্বাচনী তহবিলে অর্থ, অভিযোগ নির্বাচন কমিশনে
  • শাসক দলের অনুগতদের নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে সরানোর দাবি বিজেপির
  • নির্বাচনী কর্মকাণ্ডের চূড়ান্ত রূপ দিতে আসছেন রাম মাধব
  • বিজেপিতে সামিল তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সর্বভারতীয় নেতা
  • সিপিআইএম এর প্রার্থী তালিকা নিয়ে জল্পনা কল্পনা
  • রাজনৈতিক দলকে চাঁদা দেওয়া কর্মচারীদের নিরপেক্ষতা নষ্ট করে: সিইও
  • রাজ্যে এল আরো কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী
  • ত্রিপুরার প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি পিছিয়ে গেছে
  • আজও বেঁচে আছে রেডিও
  • আজও বেঁচে আছে রেডিও
  • নির্বাচনের কারণে পিছানো হতে পারে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পরীক্ষা
  • শাসক দলের হয়ে কাজ করতে গিয়ে জনরোষের মুখে পুলিশ
  • চূড়ান্ত ভোটার তালিকা রূপায়নে গড়মিলে অভিযুক্তদের সাজা হবে: সিইও
  • রাজনৈতিক সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের রূপ কমলপুর
  • বিজেপি-আইপিএফটির জোট চূড়ান্ত
  • ত্রিপুরায় ইস্যুতে সরগরম, সিপিআইএম এর কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক
  • নির্বাচন ঘোষণা অভূতপূর্ব চ্যালেঞ্জের মুখে দারিয়ে বাম নেতৃত্ব
  • সিপিআইএম থেকে বেরিয়েই বিস্ফোরক মন্তব্য নৃপেন সঙ্গী
  • ভুয়ো ভোটার নিয়ে পুনরায় নির্বাচন কমিশনে যাবে বিজেপি
  • রাজ্যে ভোট ১৮ই ফেব্রুয়ারি। গণনা ৩ মার্চ
  • http://www.agartalanewsexpress.com/news/topfive/get.php?id=1663
  • আইপিএফটির সঙ্গে জোট নিয়ে চূড়ান্ত আলোচনা গুয়াহাটিতে বৃহস্পতিবার

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

জাতীয় খবর

00310
0057
0057
0057
0057
আদালতে নির্ধারিত হতে পারে রাজেশ ও নুপূর তলোয়ারের ভাগ্য

এলাহাবাদ, ১২ অক্টোবর (এ.এন.ই ): ২০০৮-এর ১৫ মে গভীর রাতে নয়ডায় নিজের শোয়ার ঘরে খুন হয়ে যায় ১৪ বছরের আরুষি তলোয়ার। মূল সন্দেহভাজন ছিল পরিচারক হেমরাজ। কিন্তু পরদিন ভোর থেকে তাকে পাওয়া যাচ্ছিল না। দুদিন পর বাড়ির ছাদ থেকে উদ্ধার হয় হেমরাজের রক্তাক্ত দেহ। এই মামলায় বৃহস্পতিবার নির্ধারিত হতে পারে আরুষির বাবা মা রাজেশ ও নুপূর তলোয়ারের ভাগ্য। মেয়ে আরুষি ও পরিচারক হেমরাজকে খুনের অপরাধে তাঁরা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন। সেই রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যান তাঁরা। তাঁদের অভিযোগ, সিবিআই ভুল তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীকে ছেড়ে দিয়েছে। এই মামলারই এদিন রায়দান হতে পারে।খুনের কিছুদিনের মধ্যেই প্রশ্ন ওঠে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের তদন্ত পদ্ধতি নিয়ে। পরিস্থিতি দেখে রাজ্যের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী তদন্তের ভার সিবিআইকে দেন। কিন্তু তাতেও তদন্তে উল্লেখযোগ্য কিছু পরিবর্তন আসেনি। সিবিআইয়ের একটি তদন্তকারী দল অভিযুক্ত সাব্যস্ত করে চিকিৎসক দম্পতি রাজেশ ও নুপূরের কমপাউন্ডার কৃষ্ণ ও প্রতিবেশীদের ২ কাজের লোক রাজকুমার আর বিজয় মণ্ডলকে। কিন্তু তাদের চার্জশিট দিতে না পারায় ছাড়া পেয়ে যায় ৩ জনই। উল্টোদিকে সিবিআইয়েরই অন্য একটি তদন্তকারী দল অভিযোগের আঙুল তোলে আরুষির বাবা মায়ের দিকে। কিন্তু যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ হাতে না থাকায় আদালতে ক্লোজার রিপোর্ট দেয়। এই রিপোর্টের বিরোধিতা করেন তলোয়ার দম্পতি, বিরোধিতা করে গাজিয়াবাদের বিশেষ সিবিআই আদালতও। ঘটনাস্থলে মেলা প্রমাণের ভিত্তিতে আরুষির বাবা মায়ের বিরুদ্ধে তদন্ত চালানোর নির্দেশ দেয় তারা। আরুষি ও হেমরাজকে খুনের দায়ে ২০১৩-য় তাঁদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই মুহূর্তে তাঁরা গাজিয়াবাদের দাসনা জেলে বন্দি।


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.