• চলে গেলেন বামফ্রন্টের আভ্যায়ক খগেন দাস
  • নির্বাচন কমিশনের কাছে বিজেপির একগুচ্ছ দাবি
  • কর্মচারীদের কাজ থেকে নির্বাচনী তহবিলে অর্থ, অভিযোগ নির্বাচন কমিশনে
  • শাসক দলের অনুগতদের নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে সরানোর দাবি বিজেপির
  • নির্বাচনী কর্মকাণ্ডের চূড়ান্ত রূপ দিতে আসছেন রাম মাধব
  • বিজেপিতে সামিল তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সর্বভারতীয় নেতা
  • সিপিআইএম এর প্রার্থী তালিকা নিয়ে জল্পনা কল্পনা
  • রাজনৈতিক দলকে চাঁদা দেওয়া কর্মচারীদের নিরপেক্ষতা নষ্ট করে: সিইও
  • রাজ্যে এল আরো কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী
  • ত্রিপুরার প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি পিছিয়ে গেছে
  • আজও বেঁচে আছে রেডিও
  • আজও বেঁচে আছে রেডিও
  • নির্বাচনের কারণে পিছানো হতে পারে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পরীক্ষা
  • শাসক দলের হয়ে কাজ করতে গিয়ে জনরোষের মুখে পুলিশ
  • চূড়ান্ত ভোটার তালিকা রূপায়নে গড়মিলে অভিযুক্তদের সাজা হবে: সিইও
  • রাজনৈতিক সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের রূপ কমলপুর
  • বিজেপি-আইপিএফটির জোট চূড়ান্ত
  • ত্রিপুরায় ইস্যুতে সরগরম, সিপিআইএম এর কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক
  • নির্বাচন ঘোষণা অভূতপূর্ব চ্যালেঞ্জের মুখে দারিয়ে বাম নেতৃত্ব
  • সিপিআইএম থেকে বেরিয়েই বিস্ফোরক মন্তব্য নৃপেন সঙ্গী
  • ভুয়ো ভোটার নিয়ে পুনরায় নির্বাচন কমিশনে যাবে বিজেপি
  • রাজ্যে ভোট ১৮ই ফেব্রুয়ারি। গণনা ৩ মার্চ
  • http://www.agartalanewsexpress.com/news/topfive/get.php?id=1663
  • আইপিএফটির সঙ্গে জোট নিয়ে চূড়ান্ত আলোচনা গুয়াহাটিতে বৃহস্পতিবার

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

ত্রিপুরা খবর

00310
0057
0057
0057
0057
৩০ দিনের মধ্যে সারে ৮ হাজার এনজিওকে সমস্ত কাগজপত্র জমা দেবার সরকারের নির্দেশ

আগরতলা ১২ই অক্টোবর (এ.এন.ই ): আগামী ৩০ দিনের রাজ্যের সারে ৮ হাজার এনজিওকে সমস্ত কাগজপত্র জমা দেবার সময় বেঁধে দিয়েছে সরকার। সরকার থেকে জানানো হয়েছে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে সবকটি সংগঠনকে সমস্ত তালিকা ও হিসাবপত্র রেজিস্ট্রার অফিসে জমা দিতে। এই নিয়ম না মানলে সংশ্লিষ্ট সংস্থার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সমবায় দপ্তরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি কৃষ্ণধন নাথ। তিনি জানিয়েছেন, সারা রাজ্যে ৭ হাজারেরও বেশি এনজিও রয়েছে। এই এনজিওগুলি সোসাইটি রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্ট-১৮৬০ অনুসারে গঠিত হয়েছে। এছাড়া ত্রিপুরা কোঅপারেটিভ রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্ট-১৯৭৪ অনুসারে আরও ১৮শ'র মত সোসাইটি রয়েছে। এই আইন অনুসারে রাজ্যের সবকয়টি ল্যাম্পস, প্যাক্স সহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের অধীনে পরিচালিত সোসাইটিগুলিকে রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হয়েছে। কৃষ্ণধন নাথ আরও বলেন, এই সোসাইটি গুলি নিয়ে তেমন কোনও সমস্যা না হলেও অভিযোগ রয়েছে ১৮৬০ অ্যাক্ট অনুসারে গঠিত এনজিওগুলিকে নিয়ে। শ্রী নাথ জানিয়েছেন, রাজ্যের অধিকাংশ সোসাইটি নিয়ম মেনে প্রত্যেক বছর নিজেদের তথ্য জমা করছে না। ফলে নথিভুক্ত সমাজসেবী সংস্থাগুলির দলিলপত্র খতিয়ে দেখা সম্ভব হচ্ছে না। একারণে সমবায় দপ্তর আগামী ৩০ দিনের মধ্যে সমস্ত এনজিও'র কাছ থেকে পরিচালন কমিটির বাৎসরিক তালিকা ও হিসাবপত্র জমা করতে নির্দেশ দিয়েছে।


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.