• ইভিএম বিভ্রাট নিয়ে কংগ্রেস তাক করলো বিজেপির দিকে
  • বিপ্লব কুমার দেবের সঙ্গে ফোনে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী
  • দ্বিতীয়ার্ধে ভোট গ্রহণের অনিয়ম ঠেকাতে বিশেষ পর্যবেক্ষকের সঙ্গে বিজেপির বৈঠক
  • সবার মতাধিকার সুনিশ্চিত করলেন সিইও
  • ত্রিপুরায় ভোটে ভিলেন সাজলো ইভিএম
  • ১৮ ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচন
  • ১৮ ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচন
  • ১৮ ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচন
  • চিরাচরিত পোষাকে ভোট দিলেন রিয়াং জাতিগোষ্ঠীর মহিলারা
  • শান্তিরবাজার দুটি বিধানসভা কেন্দ্রেই উৎসবের মেজাজে চলেছে ভোট গ্রহণ
  • রাজ্যের বিভিন্ন কেন্দ্রে উঠেছে ইভিএম নষ্টের অভিযোগ
  • ভোট দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার
  • আধাসামরিক বাহিনীর কড়া নজরদারীর মধ্য দিয়ে চলছে ভোটগ্রহণ
  • শান্তিরবাজারে ভোটগ্রহণ শুরু
  • বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে ইভিএম মেশিন খারাপ, পরে নতুন মেশিন এনে ভোট গ্রহণ শুরু
  • ১৮ বিধানসভায় ৫৯টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু
  • তেলিয়ামুড়ায় মহিলা ভোটার দের মধ্যে চকলেট বিতরন
  • নির্বাচনের লক্ষ্যে পোলিং এজেন্টদের নির্দিষ্ট গন্তব্যস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

ত্রিপুরা খবর

00310
0057
0057
0057
0057
ত্রিপুরা সরকারকে চাঁচা ছোলা ভাষায় আক্রমণ করলেন যোগী আদিত্যনাথ

আগরতলা, ১৩ই ফেব্রুয়ারি (এ.এন.ই ): ত্রিপুরার আইনের শাসন ভেঙে পড়েছে বলে অভিযোগ করেছেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। দেশের 

বিকশিত রাজ্যের তালিকায় ত্রিপুরার সংযোজন করার জন্য আবেদন জানান।
মঙ্গলবার ঝড়ো প্রচার অভিযানে মাঝখানে যোগী আদিত্যনাথ সাংবাদিকদের বলেন, ত্রিপুরা মায়ের শক্তিস্থল এরাজ্যে শুভদিন আনতে হবে। এটা আসতে পারে 

'সবকা সাথ সবকা বিকাশ' মন্ত্র নিয়ে। ত্রিপুরার মানুষ এক অদ্ভুত পরিস্থিতির মধ্যে বাস করছে। ত্রিপুরায় গরিবি দূরীকরণ, জনকল্যাণ, শিক্ষা-স্বাস্থ্য কোন 

কিছুতেই সাফল্য আনতে পারেনি মানিক সরকার নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্ট সরকার। শুধু তাই নয় তপশিলি জাতি উপজাতি এবং অন্যান্য অগ্রসর শ্রেণীর জন্য 

সুবিধা গুলি সম্প্রসারিত করছেনা এই সরকার।
গরীবদের গরীব রেখে দেওয়া বেকারত্ব বাড়িয়ে তোলা এই জাতীয় অপচেষ্টার কারণে রাজ্যে অরাজগতা সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশকে পার্টির ক্যাডারের মত হয়ে কাজ 

করতে হয়। পুলিশ এবং সাধারণ প্রশাসনের রাজনীতি করণ করা হয়েছে। ফলে সবই পার্টির নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে এমন হওয়া উচিৎ হয়নি। আইন ব্যবস্থা ভেঙে 

পরায় নারী নির্যাতনে সেরা। 
অন্যদিকে তিনি বলেন, রাজ্যে সম্ভাবনাময় অনেক ক্ষেত্র রয়েছে। এরমধ্যে পর্যটন উল্লেখযোগ্য। কেন্দ্রীয় সরকার বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে সব নতুন কর্মসূচি নিয়েছে যে 

গুলি সঠিক ভাবে পালন করলে রাজ্যে কোন সমস্যাই থাকার কথা ছিলনা। নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে তিনি যেসব কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন 

তাতে শুধু এই দেশে নয় উপরন্তু সমগ্র বিশ্বে সমাদৃত হচ্ছেন। দেশের বিকাশের নতুন গতি এসেছে। কেন্দ্রে ও রাজ্যে একেই নীতি উপর প্রতিষ্ঠিত সরকার 

থাকলে পরিকল্পনা রূপায়নে এবং উন্নয়ন তরান্বিত করার ক্ষেত্রে যথেষ্ট উপযোগী পরিবেশ তৈরি হয়। 
সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, রাজ্যের ৩৭ শতাংশ নাথ সম্প্রদায় লোক রয়েছেন। আর তাদের অধিকাংশই গোরক্ষনাথ মন্দিরে আশ্রিত। 

কিন্তু ধর্ম এবং সম্প্রদায় ভিত্তিক রাজনীতি করতে তিনি রাজ্যে আসেননি তবে এই নাথ সম্প্রদায় ত্রিপুরায় ওবিসি তালিকাভুক্ত। আর তাদের সংরক্ষণ না 

দেওয়া কিংবা ন্যায় সংক্রান্ত পদ্ধতিতে তাদের সুযোগ সুবিধা না দেওয়া বামফ্রন্ট সরকারের জন্য সঠিক হয়নি।  


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.