ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিশ্ব খবর

00310
0057
0057
0057
0057
প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিঙ্ঘের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে ছয় ক্যাবিনেট মন্ত্রীর পদত্যাগ

কলম্বো, ১৩ এপ্রিল (এ.এন.ই ): শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রণিল বিক্রমাসিঙ্ঘের বিরুদ্ধে সরাসরি অনাস্থা প্রস্তাব আনলেন দেশের জোট সরকারের শরিক দলের ছয় মন্ত্রী৷ প্রেসিডেন্ট মৈত্রীপালা সিরিসেনা ঘনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিরোধীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে এই অনাস্থা আনা হয়৷ এরপর বৃহস্পতিবারই ক্যাবিনেট থেকে এই মন্ত্রীরা পদত্যাগ করলেন৷ বিক্রমাসিঙ্ঘের দল ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির সঙ্গে জোটে ক্ষমতায় রয়েছে শ্রীলঙ্কান ফ্রিডম পার্টি৷ এই দলেরই মন্ত্রীদের পক্ষ থেকে এই অনাস্থা প্রস্তাব আসে৷ বুধবার রাতেই প্রেসিডেন্টের কাছে নিজেদের পদত্যাগ পত্র পাঠিয়ে দেন মন্ত্রীরা৷ পদত্যাগ করেছেন দুর্যোগ ও পূণর্বাসন মন্ত্রী অনুরা প্রিয়দর্শনা ইয়াপা, ক্রীড়ামন্ত্রী দয়াশ্রী জয়াশেখরা, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী এস বি দিশানায়েকে, শ্রমমন্ত্রী জন সেনেভারতনে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী সুশীল প্রেমজয়ন্তা ও বৃত্তিমূলক শিক্ষামন্ত্রী চন্ডীমা ভীরাক্কোডি৷ গত সপ্তাহেই প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপক্ষের সঙ্গে দাঁড়িয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অনাস্থা আনেন এঁরা৷ আরও দশ জন রাজ্য ও প্রতিমন্ত্রীও প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে গিয়ে ভোট দিয়েছেন৷ দুর্যোগ ও পূণর্বাসন মন্ত্রী ইয়াপা সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দেওয়ার সময় তাঁরা জোট সরকারের অধীনে থেকে ভোট দেন নি বলে জানান৷ নিজের দলের সদস্য হিসেবে ভোট দিয়েছেন৷ তাই তাদের এই কাজ অনৈতিক নয় বলেও তিনি দাবি করেন৷ শরিক দল শ্রীলঙ্কান ফ্রিডম পার্টির অন্যান্য সদস্যরা অনাস্থা প্রস্তাব আনার সময় সংসদে অনুপস্থিত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে৷ তবে তাঁরা সরকারে রয়েছেন বলে সূত্রের খবর৷ এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার স্থানীয় নির্বাচনে মাহিন্দা রাজাপক্ষের দল ফ্রিডম পার্টি বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছে। গত ১০ ফেব্রুয়ারির ওই নির্বাচনের ফল রাজাপক্ষকে আবার ক্ষমতার কেন্দ্রে আনতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। মাহিন্দা রাজাপক্ষের দলের পক্ষে ভোটের ৪৫ শতাংশ পেয়ে প্রথম হয়েছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহের দল ইউনিয়ন ন্যাশনাল পার্টি (ইউএনপি) ভোটের হিসেবে দ্বিতীয় দল। তারা ৩৩ শতাংশ ভোট পেয়েছে। এই ফলাফলে কেন্দ্রীয় সরকারের পতন হবে না, তবে রাজাপক্ষের গ্রহণযোগ্যতা আগের চেয়ে যে বেড়েছে তা বলা যেতে পারে।


Copyright © 2012 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.