কাঞ্চনপুরে ১৪৪ ধারা, তদন্তে পুলিশ

LATEST UPDATE

কাঞ্চনপুরে ১৪৪ ধারা, তদন্তে পুলিশ

আগরতলা ১০ ফেব্রুয়ারি (এ.এন.ই): দুই অটো চালকের বচসাকে ঘিরে উত্তপ্ত কাঞ্চনপুর। জানা গেছে, পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত যে কাঞ্চনপুরে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। জানা গেছে শনিবার কাঞ্চনপুর শহরে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। জানা গেছে, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলেও কাঞ্চনপুর শহরে এখনো চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। খবরের সূত্রে জানা গেছে, সরস্বতী পুজোর দিন রবিবার সকালেও একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। সকাল থেকে কাঞ্চনপুর শহরে নিরাপত্তা বাহিনী টহল দিচ্ছে। অন্যান্য দিনের মত বাজার হাট, দোকান পাঠ সে রকমভাবে খুলেনি। রাস্তায় সাধারণ মানুষের উপস্থিতি খুবই কম বলে জানা গেছে। এদিকে কাঞ্চনপুরে চাকমা বনাম বাঙ্গালীদের মনের মধ্যে যে অবিশ্বাসের বীজ ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তাতে যে কোন পরিস্থিতি অন্য আকার ধারণ করতে পারে বলে বিভিন্ন মহলের দাবি। তবে পরিস্থিতির দিকে তীক্ষ্ণ নজর রেখে চলেছে পুলিশ। পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়েছে কেন বাঙালি এবং চাকমাদের এই অবিশ্বাসের বাতাবরণ সৃষ্টি হয়েছে সেই দিকে তারা তদন্ত শুরু করে দিয়েছে। উল্লেখ্য কাঞ্চনপুরে টুকটুক চালক বরুণ চাকমা এবং অটো চালক নিবারণ নাথের মধ্যে যাত্রী তোলা নিয়ে বচসা বাধে। এরপর দুজনের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। যদিও পরে প্রাথমিকভাবে এই সমস্যার সমাধানও হয়ে যায়। কিন্তু ঝগড়ার আবার ঘটে যখন টুকটুক চালক তার এলাকায় গিয়ে আরও চাকমা যুবকদের নিয়ে লাঠিসোটা সহ অটো চালক নিবারণ নাথের উপর হামলা করে। নিবারণ নাথের উপর হামলা করতে৷ দেখে বাঙালী অংশের অন্যান্য অটো চালকরাও পালটা হামলা করে। এতে পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপের দিকে যেতে থাকে। এদিকে পরিস্থিতি যাতে খারাপের দিকে না যায় সেই লক্ষ্যে পুলিশ ময়দানে নামে। কিন্তু সেই সময় কর্তব্যরত পুলিশ অফিসার দয়াল চাকমা কোন কিছু না বুঝেই বাঙালী চালকদের পেটাতে শুরু করে এতে বাঙালী অটো চালকরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠে। বিষয়টি জানা জানি হতেই শুভবুদ্ধিসম্পন্ন অংশের মানুষ এই ঘটনা প্রতিরোধে এগিয়ে আসে এবং প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চায়। শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রশাসনের তরফ থেকে ১৪৪ ধারা জারি  করা হয়। এদিকে কাঞ্চনপুরবাসীরা চায় পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত করুক। তারা চায় চাকমা এবং বাঙালীরা সবাই যাতে একসঙ্গে শান্তিতে বসবাস করে।

আরো পড়ুন

Advertisement