• এনআরসি ইস্যুতে খুমলুঙে ২৫ সেপ্টেম্বর আইএনপিটির যুব জমায়েত
  • ম্যালেরিয়ার মারণ থাবা গোটা ধলাই জেলায়, মৃত ৩
  • শিক্ষকের বরখাস্তের প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্কুল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিলো ছাত্র ছাত্রীরা
  • স্বচ্ছ গ্রামের শিরোপা পেতে চলেছে নিদয়া গ্রাম
  • ভারত বাচাও ইস্যুতে কংগ্রেসের রাজভবন অভিযান
  • রাজ্যের তরুণ সাংবাদিক শান্তনু ভৌমিকের আজ প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী
  • আমবাসায় গাড়ি থেকে ৮১ কেজি গাঁজা উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪
  • রাজ্যের সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করলেন মুখ্যমন্ত্রী
  • কৈলাশহর রামকৃষ্ণ মহাবিদ্যালয়ের ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১
  • লড়ির ধাক্কায় ভবঘুরে মহিলার মৃত্যু
  • মা আসছে, চলছে জোরকদমে প্রস্তুতি
  • পুজোতে ৩ লক্ষের উপর পরিবারকে কাজের ঘোষনা উপমুখ্যমন্ত্রীর
  • শিলাছড়িতে কৃষি দফতরের অফিস উদ্বোধনকে ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড, আহত ৮
  • রাজ্য সরকারী কর্মচারীদের খুব শীঘ্রই সপ্তম বেতন কমিশন দেওয়া হবে: মুখ্যমন্ত্রী
  • আইজিএম হাসপাতালে রক্ত বিক্রি করতে গিয়ে ধৃত যুবক
  • তিনদিনের সফরে রাজ্যে এলেন পলিটব্যুরোর সদস্যা বৃন্দা কারাত
  • গ্রামীণ অর্থনীতি ভেঙে পরেছে তা পুনরুদ্ধার করতে গাঁজা চাষ যুক্ত জমি গুলিতে মাষকলাই চাষ করা হবে: প্রাণজিৎ সিং রায়
  • বিনা টেন্ডারে কাজের নির্দেশের বিষয়টির প্রাক্তন কংগ্রেস বিধায়কের মন্তব্য সম্পূর্ণ অসত্য: রতন চক্রবর্তী
  • ৬ মাসে ৫০ হাজার গাঁজা উদ্ধার, মুখ্যমন্ত্রীর প্রাণনাশের হুমকি, উদ্বিগ্ন কেন্দ্র ও রাজ্য: প্রতিমা ভৌমিক
  • বুধবার থেকে শুরু হয়েছে রিয়াং শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তন
  • ঘিলাতলীর ছনখলার জঙ্গল থেকে দুটি মৃতদেহ উদ্ধার
  • কৈলাসহর রামকৃষ্ণ মহাবিদ্যালয়ে ছাত্র সংঘর্ষ, আহত ৪
  • যোগেন্দ্রনগর রেল স্টেশন থেকে বিলেতি মদ সহ গ্রেপ্তার ১
  • শিক্ষক বদলির দাবিতে বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে ক্লাস বয়কট স্কুল পড়ুয়াদের
  • শিক্ষক বদলির দাবিতে বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে ক্লাস বয়কট স্কুল পড়ুয়াদের

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

জাতীয় খবর

দুই ছাত্রের বচসার জেরে একাদশ শ্রেনির ছাত্র খুন

হরিয়ানা ১৯ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): একই স্কুলের উঁচু ও নিচু ক্লাসের ছাত্রের মধ্যে বচসা। তারপর হাতাহাতি এবং ছুরির আঘাতে উঁচু ক্লাসের ছাত্রের মৃত্যু। ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছে নিচু ক্লাসের ছাত্রটি। হরিয়ানার পঞ্চকুলা জেলার এই ঘটনায় বিস্মিত গোটা দেশ। জি নিউজ-এর খবর অনুযায়ী, গত সোমবার সরকারি উচ্চ-মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বাইরে ছুরিকাহত হয় একাদশ শ্রেণির ছাত্র বিকাশ কুমার। এই ঘটনায় তদন্ত শুরু করে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই হরিয়ানা পুলিস গ্রেফতার করেছে ওই বিদ্যালয়েরই নবম শ্রেণির এক ছাত্রকে। জানা গিয়েছে, বিকাশের সঙ্গে তার অনুজের বচসার সময় সামনে উপস্থিত ছিল আরও এক ছাত্র। সে নিজেও ওই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেমির ছাত্র। প্রত্যক্ষদর্শী ওই ছাত্রের বয়ান অনুযায়ী এই ঘটনার সূত্রপাত হয় শহরের ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের সামনে। ইভ-টিজিংয়ের প্রতিবাদ করাতেই দুই ছাত্রের মধ্যে বচসা বাঁধে। এরপর তাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। গণ্ডগোল সামাল দিতে গিয়ে আহত হয় দশম শ্রেণির ছাত্রটিও। এই ঘটনায় বিদ্যালয়ের সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখছে তদন্তকারীরা। হরিয়ানা পুলিসের ডেপুটি কমিশনার জানিয়েছেন, “এই খুনের ঘটনায় দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে জুভেনাইল অ্যাক্ট ২০১৫ অনুযায়ী মামলাও রুজু করা হয়েছে। সিসিটিভি ফুটেজ এবং প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান অনুযায়ীই কিশোরদের গ্রেফতার করা হয়েছে”। অন্যদিকে, ছাত্র খুনের ঘটনায় পুলিসি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখায় মৃত ছাত্রের পরিবার। অভিযুক্ত-কে গ্রেফতার করতে কেন দু'দিন সময় লাগাল পুলিস, এই অভিযোগেই মঙ্গলবার কালকা-শিমলা পথ অবরোধ করে তাঁরা। এমনকি ছাত্রের দেহ ময়নাতদন্ত করতেও বাধা দেয় মৃত ছাত্রের পরিবার। যদিও পরে তদন্তের কথা মাথায় রেখেই পুলিসের সঙ্গে সহোযগিতা করেন তাঁরা। গতকাল হরিয়ানার সেক্টর-৬-এ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে বিকাশের দেহ।

19-09-2018 04:32:43 pm

তাত্ক্ষণিক তিন তালাক শাস্তিযোগ্য অপরাধ অর্ডিন্যান্স পাশ করল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা

দিল্লি ১৯ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): তাত্ক্ষণিক তিন তালাককে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসাবে ঘোষণা করতে অধ্যাদেশ (অর্ডিন্যান্স) পাশ করল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। মুসলিম মহিলাদের ক্ষমতায়নের জন্য কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তকে বিরাট পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে। এই অধ্যাদেশের বলে তিন বার 'তালাক' শব্দটি উচ্চারণ করে বিবাহ বিচ্ছেদের চেষ্টা করা হলে স্বামীর তিন বছর পর্যন্ত কারাবাসের সাজা ও জরিমানা হতে পারে। এছাড়া, স্ত্রী খোরপোশের আবেদনও করতে পারবেন। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এবার এই অধ্যাদেশে স্বাক্ষর করলেই তাত্ক্ষণিক তিন তালাক শাস্তিযোগ্য অপারধে পরিণত হবে। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের অগস্টে তাত্ক্ষণিক তিন তালাককে বেআইনি ও অসাংবিধানিক হিসাবে রায় দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ। সরকারকে এ বিষয়ে আইন প্রণয়নের নির্দেশেও দিয়েছিল দেশের শীর্ষ আদালত। তালাক-ই-বিদ্দত বা তাত্ক্ষণিক তিন তালাককে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসাবে চিহ্নিত হওয়ার পর আদালতের নির্দেশেই কেন্দ্রীয় সরকার "দ্য মুসলিম ওম্যান (প্রোটেকশন অফ রাইটস অন ম্যারেজ) বিল ২০১৭" পাশ করিয়েছিল লোকসভায়। কিন্তু, রাজ্যসভায় বিলটিকে পাশ করাতে পারেনি সংখ্যালঘু সরকার। ফলে, তা আর আইন হয়ে উঠতে পারেনি। বিলটির সব দিক খতিয়ে দেখতে সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর দাবি করা হয়। বাদল অধিবেশনের শেষ দিন এই বিলে তিনটি প্রধান সংশোধনী নিয়ে আসা হয়। তিন তালাক বিলের সংশোধিত সংস্করণে কেবল তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী বা তাঁর নিকটাত্মীয়রাই অভিযোগ দায়ের করতে পারবে। এর ফলে, প্রতিবেশী বা যে কেউ অভিযোগ করেই কোনও মুসলিম বিবাহিত পুরুষকে বেকায়দায় ফেলতে পারবে না। এর পাশপাশি, ফিরিয়ে নেওয়ার সুযোগও থাকছে যা বিলের প্রাথমিক খসড়ায় ছিল না। অর্থাত্, ইচ্ছা হলে কোনও মহিলা তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিয়ে ফের একসঙ্গে সংসার করতে পারেন। এছাড়া সংশোধিত বিলে, পুলিসের হাতে জামিন দেওয়ার অধিকার দেওয়া হয়নি। কেবল মাত্র বিচারক বা বিচারপতিই মহিলার বক্তব্য শোনার পর অভিযুক্ত স্বামীকে জামিন মঞ্জুর করতে পারবেন। তিন তালাক বিলকে সংসদের উভয় কক্ষে সর্বসম্মতভাবে পাশ না করিয়ে সরাসরি অধ্যাদেশের রাস্তায় হাঁটার যে পদক্ষেপ মোদী সরকার গ্রহণ করল, তাতে বিশেষ রাজনীতির গন্ধ পাচ্ছেন পর্যবেক্ষকদের অনেকেই। বিজেপি মুসলিম মহিলাদের পাশে রয়েছে, ২০১৯-এর লোকসভা ভোটের আগে এই অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে তেমন বার্তাই দিতে চাইছে গেরুয়া শিবির। এদিন অর্ডিন্যান্স জারি করার পরেই কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এই বিলে কংগ্রেসের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাঁর দাবি, সংঙ্কীর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাধনের লক্ষ্যেই কংগ্রেস এই বিলকে রাজ্যসভায় সমর্থন করেনি। অন্যদিকে, বিজেপি-র এমন অতিসক্রিয় ভূমিকাকে সামনে রেখে যে বিরোধীরাও পদ্ম শিবিরের বিরুদ্ধে ময়দানে নামবে, সে বিষয়ে সংশয়হীন রাজনৈতিক মহল।

19-09-2018 04:23:46 pm

জম্মুর আন্তর্জাতিক সীমান্তে উদ্ধার হল ভারতীয় জওয়ানের গলা কাটা দেহ

জন্মু কাশ্মীর ১৯ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): সীমান্তে ফের পাক সেনার বর্বরতা। জম্মুর আন্তর্জাতিক সীমান্তে উদ্ধার হল ভারতীয় জওয়ানের গলা কাটা দেহ। দেহে ছিল ৩টি বুলেটের ক্ষতচিহ্ন। ৬ ঘণ্টা ধরে খোঁজ মিলছিল না নরেন্দ্র কুমার নামে ওই জওয়ানের। ঘটনার জেরে ভারত পাক সীমান্তে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে। জারি হয়েছে রেড অ্যালার্ট। মঙ্গলবার জম্মুর রামগড় সেক্টরে ভারত - পাক আন্তর্জাতিক সীমান্তে মেলে বিএসএফ জওয়ান নরেন্দ্র কুমারের গলাকাটা দেহ। এর জেরে আন্তর্জাতিক সীমান্ত ও নিয়ন্ত্রণরেখায় রেড অ্যালার্ট জারি হয়েছে। বিএসএফের তরফে জানানো হয়েছে এই ঘটনা বেনজির। পাকিস্তানের কাছে এর তীব্র প্রতিবাদ জানানো হবে বলেও বিএসএফ-এর তরফে স্পষ্ট করা হয়েছে। আধিকারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার ঘাস কাটতে সীমান্তের কাছে গিয়েছিলেন ভারতীয় জওয়ানরা। তখনই সকাল ১০.৪০ মিনিট নাগাদ গুলি চলে। ৬ ঘণ্টা ধরে নিখোঁজ ছিলেন বিএসএফ-এর হেড কনস্টেবল নরেন্দ্র কুমার। তাঁর দেহ পড়ে ছিল সীমান্তের খুব কাছে। ভারতীয় বাহিনী দেহ উদ্ধারে গেলে পালটা গুলি চালাতে পারত পাক রেঞ্জারস। পাক সেনার সঙ্গে সেজন্য বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কেউ ফোন ধরেনি বলে অভিযোগ ভারতের। নিখোঁজ জওয়ানের খোঁজ পেতে পাকিস্তানকে যৌথ তল্লাশি অভিযানে যোগদানের অভিযোগ জানিয়েছিল ভারত। অভিযোগ, কিছুক্ষণ পর পাকিস্তানের তরফে জানানো হয়, জল জমে থাকায় অভিযানে অংশগ্রহণ করতে পারবে না তারা। বুধবার সকালে সূর্য উঠলে ঝুঁকি নিয়েই নিখোঁজ জওয়ানের সন্ধানে নামে বিএসএফ। তখনই উদ্ধার হয় দেহ। সেনার তরফে জানানো হয়েছে, এই প্রথম আন্তর্জাতিক সীমান্তে এমন নৃশংস খুনের ঘটনা ঘটল। বিষয়টি নিয়ে ভারতের ডিজিএমও পাকিস্তানের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানা গিয়েছে।

19-09-2018 04:19:26 pm

সৌন্দর্যায়নের জন্য তাঁর পূর্ণাবয়ব জওহরলাল নেহেরুর মূর্তি সরিয়ে ফেলল এলাহাবাদ পুরনিগম

এলাহাবাদ ১৪ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): জন্মভূমিতেই উতখাত হলেন দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু। সৌন্দর্যায়নের জন্য তাঁর পূর্ণাবয়ব মূর্তি সরিয়ে ফেলল এলাহাবাদ পুরনিগম। বৃহস্পতিবার শহরের বালসান চৌমাথা থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর মূর্তি। পুরনিগমের তরফে জানানো হয়েছে, ২০১৯-এর কুম্ভমেলার আগে সৌন্দর্যায়নের স্বার্থেই সরানো হয়েছে ওই মূর্তি। ঘটনায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছে স্থানীয় কংগ্রেস নেতৃত্ব। তাদের দাবি, এই ঘটনা প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীকে অপমানের নামান্তর। পুরনিগমের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবারই সেখানে বিক্ষোভ দেখায় কংগ্রেস ও সমাজবাদী পার্টির কর্মী-সমর্থকরা। তাদের দাবি, পরিকল্পনা করে ওই মূর্তি সরানো হয়েছে। এমনকী ক্রেন আটকে উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন তারা। একই সঙ্গে বিরোধীদের প্রশ্ন, সৌন্দর্যায়নের নামে জওহরলাল নেহেরুর মূর্তি সরানো হলেও ওই রাস্তার ওপরেই বহাল তবিয়তে রয়েছে দীনদয়াল উপাধ্যায়ের একটি মূর্তি। কংগ্রেসের দাবি, মূর্তিটি সরিয়ে পাশে একটি জায়গায় রাখা হয়েছে। এভাবে সাধারণ মানুষের সামনে থেকে নেহেরুর আদর্শ সরিয়ে ফেলার চেষ্টা হচ্ছে বলে দাবি তাদের। কেন নেহেরুর মূর্তি সরানো হল তা নিয়ে মুখ খুলতে নারাজ স্থানীয় প্রশাসনিক কর্তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আধিকারিক জানিয়েছেন, কুম্ভ মেলার আগে রাস্তা চওড়া করা দরকার। নেহেরুর মূর্তিটি রাস্তার মাঝখানে ছিল তাই সরানো হয়েছে। সেটিকে পাশে একটি উদ্দ্যানে বাসানো হবে।

14-09-2018 05:17:08 pm

৪৯৮এ ধারায় অভিযুক্তরাও আগাম জামিনের আবেদন করতে পারবেঃ সুপ্রিম কোর্ট

দিল্লি ১৪ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৮এ ধারা অর্থাৎ গার্হস্থ্য হিংসার হাত থেকে গৃহবধূদের রক্ষাকবচ হিসাবে দেখা হয় যে আইনকে, দেশ জুড়ে তারই 'অপব্যবহার' হচ্ছে। শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট এই বিষয়টি বিবেচনা করল এবং এই ধারায় অভিযুক্তরা এখন থেকে আগাম জামিনের আবেদন করতে পারবেন বলেও জানানো হল। এতদিন এটি জামিন অযোগ্য অভিযোগ ছিল। ৪৯৮এ ধারার 'অপব্যবহার'-এর বিষয়ে আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চেয়ে একগুচ্ছ আবেদন জমা হয়েছিল দেশের শীর্ষ আদালতে। চলতি বছরের ২৩ এপ্রিল এ মামলাগুলিতে রায় ঘোষণা না করে তা পিছিয়ে দেয়। এর আগে গত বছর জুলাই মাসে সুপ্রিম কোর্টের দুই বিচারপতির বেঞ্চ ৪৯৮এ ধারার অপব্যবহারের বিষয়ে কড়া অবস্থান গ্রহণ করে। অভিযোগ ভাল করে খতিয়ে না দেখে অভিযুক্তকে গ্রেফতারই করা যাবে না বলে নির্দেশ দেয়। এরমধ্যে মহারাষ্ট্রের আহমেদনগর জেলার বেশ কিছু মহিলা আইনজীবীদের তৈরি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা 'নয়াধার' সুপ্রিম কোর্টে একটি আবেদন জমা করে। তাদের দাবি, ৪৯৮এ ধারাকে আরও তীক্ষ্ণ করা প্রয়োজন (অর্থাত্ স্বামী-শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে), না হলে আক্রন্তদের এই 'রক্ষাকবচ' ক্রমশ 'অকেজো' হয়ে পড়বে। এরপর সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ আজ জানায়, পণ প্রথা ও গার্হস্থ্য হিংসার হাত থেকে মেয়েদের রক্ষা করা নিশ্চিতভাবেই আদালতের দায়িত্ব। পাশাপাশি, ৪৯৮এ ধারার মতো আইনের অপব্যবহার করে যদি সমাজে পুরুষদের অকারণ হয়রানি করা হয় তাহলে সেটি রোখাও আদালতের কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। এ ক্ষেত্রে যাতে সমাজে অস্থিরতা সৃষ্ট না হয়, তাও দেখতে হবে। এরপরই শীর্ষ আদালত জানায়, এবার থেকে ৪৯৮এ ধারায় অভিযুক্তরাও আগাম জামিনের আবেদন করতে পারবে। সামাজিক দিক থেকে সুপ্রিম কোর্টের এদিনের এই রায়কে অত্যন্ত তাত্পর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

14-09-2018 05:06:37 pm

পেট্রোল ৫৫ টাকায়, ডিজেল ৫০ টাকায় মিলবেঃ নিতিন গডকড়ি

দিল্লি ১২ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): একদিন পেট্রোল ৫৫ টাকায়, ডিজেল ৫০ টাকায় পৌঁছবে যদি বিকল্প জ্বালানির ব্যবস্থা করতে পারবে দেশ। পেট্রোল-ডিজেলের লাগাতার মূল্যবৃদ্ধির মধ্যে এমনই আশার বাণী শোনালেন কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণমন্ত্রী নিতিন গডকড়ি । ছত্তিসগড়ের রায়পুর থেকে দুর্গ পর্যন্ত উড়ালপুল-সহ একাধিক নির্মাণের ভিত্তি স্থাপন করে সোমবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, জৈব জ্বালানি উত্পাদনের কেন্দ্র হতে পারে ছত্তিসগড়। নিতিন গডকড়ির যুক্তি, ছত্তিসগড়ে ধান, গম, ডাল, আখ এবং বিভিন্ন শস্য প্রচুর পরিমাণে উত্পাদিত হয়। কৃষির উত্পাদনের হার যথেষ্ট ভাল। জৈব জ্বালানির হাবের আদর্শ জায়গা ছত্তিসগড়। বায়োটেকনোলজির বিশেষজ্ঞরা যদি রায়পুরে হাব তৈরির চিন্তাভাবনা করে, এক দিন রায়পুরই জৈব জ্বালানিতে গোটা দেশকে দিশা দেখাবে। নিতিনের আরও যুক্তি, পেট্রোলিয়ামের উপর নির্ভরতা কমাতে ইথানল, মিথানল, জৈব জ্বালানি এবং সিএনজি-র ব্যবহার আরও বাড়াতে হবে। নিতিন বলেন, “৮ লক্ষ কোটি টাকা ব্যয় করে পেট্রোল-ডিজেল আমদানি করা হচ্ছে। এর দাম ক্রমশ বেড়েই চলেছে। ডলার পিছু টাকার দরও পড়ছে। কিন্তু গত ১৫ বছর ধরে কৃষক, আদিবাসী মানুষদের বলে আসছি আরও বেশি করে ইথানল, মিথানল, জ্বালানি তেল উত্পাদন করা উচিত। জৈব জ্বালানি দিয়ে আমরা বিমানও ওড়াতে পারি।”সরকারও এ বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছে বলে জানান নিতিন গডকড়ি। তাঁর কথায়, ধান-গমের খড়, আঁখের ছিবড়ে এবং অন্যান্য বর্জ্য দিয়ে জৈব জ্বালানি তৈরি করতে হাব তৈরি করা হচ্ছে। আগামী দিনে লিটার পিছু পেট্রোল ৫৫ টাকা এবং ডিজেল ৫০ টাকায় মিলবে। নিতিনের এই মন্তব্যে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিরোধীরা। পেট্রোল-ডিজেলর দাম যেখানে আকাশ ছুঁয়েছে, আশু সুরাহা না দিয়ে নিতিন গডকড়ি দেশবাসীকে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন বলে কটাক্ষ বিরোধীদের। উল্লেখ্য, পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধির সঙ্গে ডলার পিছু টাকার দাম পড়ছে সমান হারে। এই মুহূর্তে জোড়া ফলায় বিঁধছে কেন্দ্র। পেট্রোপণ্যের মূল্য বৃদ্ধিতে কেন্দ্রের কোনও নিয়ন্ত্রণ নেই বলে সাফ জানিয়েও দেন আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। তবে, নীতিনের এই নিদান আজ না হলেও একদিন আশার আলো দেখাবে বলে বিদ্রুপ শোনা গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও।

12-09-2018 04:21:21 pm

রাজস্থানের রাজ্যপালের কাছে সাজা মুকুবের আর্জি জানাল আসারাম

জোধপুর১২ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): বয়স ৭৭। সে কথা মাথায় রেখেই তার সাজা মুকুব করা হোক। রাজস্থানের রাজ্যপালের কাছে এমনই আর্জি জানাল আসারাম। ধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত হয়ে গত এপ্রিল থেকে জোধপুরের সেন্ট্রাল জেলে রয়েছে আসারাম। চলতি বছরের ২৫ এপ্রিল আসারামকে আজীবন কারাদণ্ড রায় দেয় জোধপুর কোর্ট। এর পর সেই রায়ের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে আসারাম দ্বারস্থ হয় হাইকোর্টে। তবে, এখনও পর্যন্ত সেই শুনানি হয়নি। সূত্রের খবর, ৭৭ বছর বয়সী আসারাম জানিয়েছে, বয়সের কারণেই আজীবন সাজা বেদনাদায়ক হয়ে উঠেছে তার কাছে। তবে, আসারামের এই আবেদন খতিয়ে দেখতে রাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে পাঠান রাজ্যপাল কল্যাণ সিং। সূত্রের খবর সেই আবেদনের প্রস্তাব পাঠানো হয় জোধপুর সেন্ট্রাল জেল কর্তৃপক্ষের কাছে। জেল কতৃপক্ষ আবার জেলা প্রশাসন এবং পুলিসের কাছে রিপোর্ট তলব করেছে। জানা গিয়েছে আসারামের এই প্রস্তাব রাজস্থানের ডিজি (কারাগার)-র কাছেও পাঠানো হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে আসারামের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে আসে ১৬ বছর বয়সী এক নাবালিকা। তার অভিযোগের ভিত্তিতেই পুলিস এফআইআর করে এবং তদন্ত শুরু হয়। স্বঘোষিত ধর্মগুরু আসারামের দেশ জুড়ে ৪০০টির বেশি আশ্রম রয়েছে। এর আগেও আসারামের বিরুদ্ধে জমি দখল, খুন, ধর্ষণের মতো একাধিক অভিযোগ উঠেছে। গুরুকুল হত্যাকাণ্ডেও প্রবল বিতর্কের মধ্যে পড়ে আসারাম। এমনকি ২০১২ সালে দিল্লির নির্ভয়াকাণ্ডে বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচিত হয় এই স্বঘোষিত ধর্মগুরু।

12-09-2018 04:16:12 pm

রাফাল চুক্তি নিয়ে রাজনৈতিক শিবিরে তর্জা চরমে

দিল্লি ১২ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): রাফাল এখনও ভারতে এসে পৌঁছোয়নি। তার আগেই রাফাল চুক্তি নিয়ে রাজনৈতিক শিবিরে তর্জা চরমে উঠেছে। রাফাল চুক্তিতে কোনও দুর্নীতি হয়েছে কি না তা তদন্ত সাপেক্ষ। কিন্তু ভারতের কাছে এই যুদ্ধবিমান কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তা এদিন স্পষ্ট করলেন বায়ুসেনা প্রধান বিএস ধানোয়া। দিল্লিতে বায়ুসেনার এক আলোচনা সবায় এয়ার মার্শাল ধানোয়া বলেন, এই মুহূর্তে 'অত্যাধুনিক' রাফাল না থাকায় দেশকে ‘ভয়ঙ্কর আশঙ্কা’র মুখে পড়তে হতে পারে। দিল্লির ‘আইএএফ’স ফোর্স স্ট্রাকচার ২০৩৫’শীর্ষক সেমিনারে চিন বা পাকিস্তানের নাম না করে ধানোয়া বলেন, “শত্রুপক্ষ রাতারাতি রণকৌশল বদলাতে পারে। তাই ভারতকে যে কোনও পরিস্থিতে প্রস্তুত থাকতে হবে।”তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে এ-ও জানিয়েছেন, প্রতিবেশীরা ঘুমিয়ে নেই। চিনের মতো প্রতিবেশী তাদের বায়ু সেনাকে প্রতি মুহূর্তে অত্যাধুনিক ছাঁচে গড়ছে। ফলে, ভারতেরও ক্ষমতা অনুযায়ী অত্যাধুনিক সামরিক প্রযুক্তি প্রয়োজন। তিনি জানান, দেশের নিরাপত্তাকে আরও শক্তিশালী করতে রাফাল বিমান এবং এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র কিনছে কেন্দ্র। উল্লেখ্য, রাফাল নিয়ে ভারত এবং ফ্রান্স দুই সরকারের যৌথ অন্তর্বর্তী চুক্তি স্বাক্ষর হয়। জানা যাচ্ছে, ২০১৯-এর শুরুতেই মোট ৩৬টি রাফাল যুদ্ধ বিমান দেশে নিয়ে আসছে মোদী সরকার। তবে, এই চুক্তি করতে গিয়ে কেন্দ্র যে অর্থ ব্যয় করেছে, সে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে স্বয়ং রাহুল গান্ধী-সহ বিরোধী দলগুলি। লোকসভা নির্বাচনে এই রাফাল ইস্যুকে অন্যতম অস্ত্র বানিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে ময়দানে নামছে কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা।

12-09-2018 04:02:04 pm

সন্ত্রাস দমনে করা বার্তা পাকিস্থানকে দিল ভারত-মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

দিল্লি ৭ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): চাপ আরও বাড়ল ইমরান খানের ওপরে। ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে টু-প্লাস-টু বৈঠকে সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তানকে সাফ বার্তা দিল দুই দেশ। বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের সঙ্গে মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেয় ও প্রতিরক্ষা সচিব জিম ম্যাটিসের সঙ্গে বৈঠকের পর ইসলামাবাদকে স্পষ্ট বলা হয়েছে, পাকিস্তানের মাটিতে সন্ত্রাস বন্ধ কর। পাক মাটিকে সন্ত্রাস চালানের কোনও জায়গা হতে দেওয়া যাবে না। দুদেশের মন্ত্রীরা তাঁদের যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছেন, পাকিস্তানকে নিশ্চিত করতে হবে যেন তাদের মাটি থেকে কোনও রকম সন্ত্রাস চালান না হয়। পাশাপাশি ২০০৮ সালে মুম্বই হামলা ও ২০১৬ সালে পাঠানকোট বায়ুসেনা ঘাঁটিতে সন্ত্রাসী হামলায় অভিযুক্তদের শাস্তি দিতে হবে বলে দাবি করেছে ভারত হাল আমলে ট্রাম্প প্রশাসনের পাকিস্তান নীতির প্রশংসা করেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। তিনি বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের দক্ষিণ এসিয়া নীতিকে সমর্থন করে ভারত। উনি যেভাবে পাকিস্তানকে সন্ত্রাস বন্ধ করার কথা বলেছেন তা ভারতেরও দাবি। সন্ত্রাস দমনে পদক্ষেপ নেওয়ারর ব্যাপারে দুদেশ সম্মত হয়েছে। আল কায়দা, ইসলামিক স্টেট, লস্কর-ই-তৈবা, হিজবুল মুজাদিহিন, হাক্কানির মতো জঙ্গি সংগঠনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার ক্ষেত্রে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহয়তা বাড়াবে বলে সম্মত হয়েছে। ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠনগুলিকে দমন করার ক্ষেত্রে গোয়েন্দা তথ্য আদানপ্রদান করার ব্যাপারেও একমত হয়েছে দুদেশ।

07-09-2018 01:21:29 pm

জঙ্গির পরিবারের সদস্যদের ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে সরানো হল জন্মু ও কাশ্মীরের ডিজিকে

জন্মু ও কাশ্মীর ৭ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): সরিয়ে দেওয়া হল জম্মু ও কাশ্মীরের ডিজি এসপি বেদকে। তাঁর জায়গায় দায়িত্বে আসছেন রাজ্যের ডিজি কারা দিলবাগ সিং। সংবাদমাধ্যমে বেদকে সরিয়ে দেওয়ার জল্পনা আগে থেকেই ছিল। এবার তা সত্যি হল। তবে প্রশ্ন উঠছে জঙ্গির পরিবারের সদস্যদের ছেড়ে দেওয়ার মাসুল দিত হল বেদকে? বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিকের সঙ্গে রাজ্য পুলিসপ্রধান বেদ-এর দূরত্ব বাড়ছিল। বিভিন্ন খাতে খরচ নিয়েই তাঁর সঙ্গে সমস্যা তৈরি হচ্ছিল রাজ্যপালের। তাঁর ওপরে থাকা দায়িত্বের কিছুটা অংশ তাঁর অধস্থন মুনির খানকে দিয়ে দেওয়া হয়। এনিয়ে বেদ তাঁর ক্ষোভ উগরে দেন রাজ্যপাল ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে। তবে সংবাদমাধ্যমে খবর, পুলিস সদরে বেশকিছু দু্র্নীতির হদিশ পাওয়া গিয়েছে যার দায় বেদের ওপরে বর্তায়। রাজ্য ভিজিল্যান্স সেইসব অভিযোগ খতিয়ে দেখেছে। এস পি বেদের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠলেও সবিকছুকে ছাপিয়ে গিয়েছে সম্প্রতি তাঁর একটি পদক্ষপ। কয়েক সপ্তাহ আগে রাজ্যের ৩ পুলিসকর্মী ও তাদের পরিবারের ৮ সদস্যকে অপহরণ করে জঙ্গিরা। তাদের ছাড়াতে জঙ্গিদের ১২ জন আত্মীয়কে ছেড়ে দেয় পুলিস। এদের মধ্যে ছিল হিজবুল জঙ্গি রিয়াজ নাইকুর বাবাও। এতে রাজ্যের পুলিস মহলে তীব্র প্রতিক্রয়ার সৃষ্টি হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্র সংবাদমাধ্যমের দাবি এই ঘটনা পুলিস মহলে বড়সড় ধাক্কা দিয়েছে। এরপরই সরিয়ে দেওয়া হয় বেদকে। রাজ্য বিজেপি সূত্রে খবর, কাঠুয়া ধষর্ণ নিয়ে বেদের ভূমিকায় তাঁর ওপরে খুশি ছিল না গেরুয়া শিবিরও।c

07-09-2018 01:16:32 pm

বিভিন্ন দাবীতে দিল্লির পথে কিষাণ-মজদুর

দিল্লি ৫ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): শ্রমিকের ন্যূনতম পারিশ্রমিক, চাষীর ফসলের লাভজনক দাম এবং কৃষি ঋণ মুকুব মোদী সরকারের থেকে এই দাবিগুলি আদায়ের লক্ষ্যে বুধবার দিল্লির পথে নেমেছেন অসংখ্য কিষাণ-মজদুর। লাল নিশান নিয়ে চলা দেহাতি মানুষগুলি হাতে হাত ব্যারিকেড গড়ে এদিন রাজধানীর পথে নেমেছেন। এই প্রথম একই দাবি নিয়ে একসঙ্গে সংসদ অভিযান করছে ভারতের বামপন্থী শ্রমিক এবং কৃষক সংগঠনগুলো। এদিনের ঘটনাকে তাই ভারতে অভূতপূর্ব বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। মার্চের লং মার্চের পর বামেদের এই কিষাণ-মজদুর সংঘর্ষ মিছিলই হতে চলেছে সরকারবিরোধী শ্রমিক-কৃষক আন্দোলনের অন্যতম হাতিয়ার, এমনই দাবি কমিউনিস্টদের। সারা ভারত কৃষক সভার নেতা হান্নান মোল্লার কথায়, “সরকার কর্পোরেটদের মুনাফা আদায়ের রাস্তা করে দিয়েছে। এতে আম আদমির দুর্দশা বাড়ছে। আমরা চাই, সরকার নীতি বদল করুক। আর সে কারণেই এই প্রথম কৃষক-শ্রমিক হাতে হাত ধরে লড়াইয়ে নেমেছ”। সিপিআই(এম) পলিটব্যুরো সদস্য হান্নান মোল্লার এই সুরে সুর মিলিয়েছেন সারা ভারত শ্রমিক সংগঠনের নেতা তপন সেনও। তাঁর বক্তব্য, “যদি সরকার শ্রমিক-কৃষকের দাবি না মেনে নেয়, আন্দোলন আরও তীব্র হবে”।

05-09-2018 02:39:38 pm

তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বাড়িতে হানা সিবিআই'র

তামিলনাড়ু ৫ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বাড়িতে হানা দিল সিবিআই। গুটখা দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রী সি বিজয়ভাস্কর, ডিরেক্টর জেনারেল অব পুলিস টি.কে. রাজেন্দ্রন, প্রাক্তন পুলিস কমিশনার এস জর্জ-সহ একাধিক হেভিওয়েট কর্তাদের বাড়িতে তল্লাসি চালাল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। ২০১৩ সালে তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে তামিলনাড়ুর সরকার। ২০১৬ সালে আয়কর দফতরের এক অভিযানে এক কারখানা থেকে উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমাণ তামাকজাত পণ্য। তদন্তে নেমে জানা যায়, চেন্নাইয়ে ফের গুটখা বিক্রি চালু করতে সরকারের এক মন্ত্রী, পুলিস কর্তা ও উচ্চপদস্থ আমলাদের মোটা অঙ্কের ঘুষ দেন ওই কারখানার মালিক মাধব রাও। বিরোধীদের দাবি ছিল, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার হাতে এই তদন্তের ভার দেওয়া হোক। যদিও এ বিষয়ে আমল দেয়নি ক্ষমতায় থাকা পালানিস্বামী সরকার।

05-09-2018 02:31:46 pm

কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধী স্লোগান দেওয়ায় গ্রেফতার তামিলনাড়ুর এক ছাত্রী

তামিলনাড়ু ৪ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): বিমানে কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধী স্লোগান দেওয়ায় গ্রেফতার করা হল তামিলনাড়ুর এক ছাত্রীকে। সোমবার তামিলনাড়ুর তুতিকোরিন বিমানবন্দরের ঘটনা। ওই বিমানে ছিলেন তামিলনাড়ু বিজেপির সভাপতি তামিলসাই সুন্দররাজন। তাঁকে দেখেই স্লোগান দিতে শুরু করেন লুসই সোফিয়া নামে ওই ছাত্রী। আদালতে পেশ করা হলে সঙ্গে সঙ্গে জামিন পান ওই ছাত্রী। অভিযোগ, বিমানে ওই ছাত্রী 'মোদী নিপাত যাক, আরএসএস-বিজেপি স্বৈরাচারী সরকার নিপাত যাক' বলে স্লোগান দিচ্ছিলেন ওই ছাত্রী। বিমান থেকে নেমে ওই ছাত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন তামিলনাড়ু বিজেপির সভাপতি। তাঁর দাবি, 'ওই ছাত্রী কোনও সাধারণ নাগরিক নন। যে ভাবে সে স্লোগান দিচ্ছিল তাতে মনে হয় তার সঙ্গে কোনও চরমপন্থী সংগঠনের যোগ রয়েছে।' কানাডার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক সোফিয়া। ২৮ বছর বয়সী সোফিয়া ও তামিলনাড়ু বিজেপি সভাপতি একই বিমানে ছিলেন। পিছন থেকে উঠে সুন্দররাজনের কাছে এসে স্লোগান দিতে থাকেন তিনি। তুতিকোরিনে বিমান অবতরণের পর ওই ছাত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন সুন্দররাজন। তাঁর দাবি, প্রকাশ্যে এভাবে স্লোগান দিয়ে অভব্যতা করেছেন ওই ছাত্রী। পুলিস সোফিয়ার বিরুদ্ধে বিশৃঙ্খলা তৈরি ও চাঞ্চল্য ছড়ানোর অভিযোগ এনেছে।

04-09-2018 04:27:09 pm

২০০৭ সালের হায়দরাবাদ জোড়া বিস্ফোরণ মামলায় ২ ব্যক্তির দোষী সাব্যস্ত

হায়দরাবাদ ৪ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): ২০০৭ সালের হায়দরাবাদ জোড়া বিস্ফোরণ মামলায় ২ ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত এবং তিন জনকে বেকসুর মুক্তি দিল আদালত। এই মামলায় সোমবার সাজা শোনানো হবে। মহম্মদ আকবর ইসমাইল চোধুরি এবং আনিক সাফিক সঈদকে দোষী হিসাবে রায় দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি, মুক্তি পেয়েছে ফারুক সারফুদ্দিন তারকাশ, মহম্মদ সাদিক ইসরার আহমেদ সাইক এবং তারিক আনজুম। তবে এই পাঁচ জনকে এদিন নিরাপত্তার কারণে নামপাল্লি-র আদালতে নিয়ে আনা হয়নি, সকলেই চারলাপাল্লি জেলে রয়েছে। এই মামলায় ২ অভিযুক্ত এখনও বেপাত্তা। ৪৪টি প্রাণহানি ঘটানো এই ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণ মামলার বিচার ২৭ অগস্টের পরিবর্তে ৪ সেপ্টেম্বর পিছিয়ে দিয়েছিল আদালত। ঘটনার তদন্তে নেমে তেলেঙ্গানা পুলিসের গোয়েন্দা বিভাগ (কাউন্টার ইন্টালিজেন্স) ইন্ডিয়ান মুজাহিদিনের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে ৫ জনকে গ্রেফতার করে এবং মোট চারটি চার্জশিট তৈরি করে। পুলিসের চার্জশিটে এই ৫ জনের নামের পাশাপাশি রিয়াজ ভাটকল ও ইকবাল ভাটকল নামের দুই পলাতক অভিযুক্তেরও উল্লেখ রয়েছে। ২০০৭ সালের ওই বিস্ফোরণের পরদিন মোট ১৯টি ফেটে যাওয়া বোমা উদ্ধার করেছিল পুলিস। তাদের সন্দেহ, আনিক সাফিক সঈদ, রিয়াজ ভাটকল এবং ইসমাইল চৌধুরিই এই বোমাগুলি পুঁতে রেখেছিল।

04-09-2018 04:21:11 pm

প্রকাশ্য দিবালোকে পিটিয়ে অবসরপ্রাপ্ত পুলিসকর্মীকে খুন করল দুষ্কৃতীরা

ইলাহাবাদ ৪ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ): ইলাহাবাদ শহরে প্রকাশ্য দিবালোকে পিটিয়ে অবসরপ্রাপ্ত পুলিসকর্মীকে খুন করল দুষ্কৃতীরা। তাকিয়ে দেখল জনতা। স্থানীয় একটি বাড়ির সিসিটিভিতে ধরা পড়েছে সেই ছবি। নিহত ব্যক্তির নাম আবদুল সামাদ খান বলে জানা গিয়েছে। সোমবার কাকভোরে এই ঘটনায় ইলাহাবাদে সাধারণ মানুষের নিরাপত্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সোমবার কাকভোরে তখন সবে পথ দিয়ে চলতে শুরু করেছে মানুষজন। তখনই রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন উত্তর প্রদেশ পুলিসের প্রাক্তন ওই সাব-ইন্সপেক্টর। ৭০ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধকে বেধড়ক মারধর শুরু করে এক দুষ্কৃতী। সাইকেল থেকে ছিটকে পড়েন আবদুল সামাদ। এর পর তাঁকে পেটাতে শুরু করে আরও ২ দুষ্কৃতী। প্রাথমিক ভাবে দুষ্কৃতীদের রোখার চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত হার মানেন তিনি। মারের চোটে কিছুক্ষণের মধ্যেই নিস্তেজ হয়ে পড়েন প্রাক্তন ওই পুলিসকর্মী। যদি ঘটনার সময় ওই সময় রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন বেশ কয়েকজন ব্যক্তি। কিন্তু দুষ্কৃতীদের রোখার চেষ্টা করেননি কেউ। চিত্কার শুনে ঘর থেকে বেরিয়ে বারান্দায় আসেন এক যুবক। তাঁকেও বাধা দিতে দেখা যায়নি। আক্রান্ত ব্যক্তি নিস্তেজ হয়ে পড়লে এলাকা ছেড়ে পালায় দুষ্কৃতীরা।

04-09-2018 04:15:20 pm

কেন্দ্রের কাছে সুপ্রিম কোর্টের পরবর্তী প্রধান বিচারপতির নাম সুপারিশ করলেন প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র

দিল্লি ৪ সেপ্টেম্বর (এ.এন.ই ):কেন্দ্রের কাছে সুপ্রিম কোর্টের পরবর্তী প্রধান বিচারপতির নাম সুপারিশ করলেন প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র। আগামী ৩ অক্টোবর শেষ হচ্ছে তাঁর কার্যকাল। অভিজ্ঞতার নিরিখে এগিয়ে থাকায় বিচারপতি রঞ্জন গগোইয়ের নাম মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রকের কাছে সুপারিশ করেন প্রধান বিচারপতি মিশ্র। কেন্দ্রের সম্মতি মিললেই সম্ভবত ৩ অক্টোবর প্রধান বিচারপতি পদে শপথ গ্রহণ করতে পারেন বিচারপতি গগোই। সূত্রের খবর, ৩ অক্টোবরের আগেই অবসর নেবেন প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র। কারণ, গান্ধী জয়ন্তী উপলক্ষে ২ অক্টোবর জাতীয় ছুটি থাকায় তিনি ১ অক্টোবর অবসর নিতে পারেন বলে জানা গিয়েছে। গত বছর ২৮ অগাস্ট সুপ্রিম কোর্টের ৪৫তম প্রধান বিচারপতি হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিচারপতি দীপক মিশ্র। ওড়িশা হাইকোর্টে ওকালতি দিয়ে শুরু। পরে ওড়িশা হাইকোর্টে ১৯৯৬ সালে অতিরিক্ত বিচারপতি হিসাবে নিযুক্ত হন তিনি। ১৯৯৭ সালে স্থায়ী বিচারপতি হিসাবে মধ্যপ্রদেশ হাইকোর্ট এবং ২০০৯ সালে পটনা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি হন দীপক মিশ্র। ২০১০ সালে দিল্লি হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি থাকাকালীনই পরের বছর সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে যোগদান করেন।

04-09-2018 04:07:31 pm

চলতি মৌসুমে বৃষ্টি, বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনায় ভারতের ৮টি রাজ্যে প্রায় ১৩শ’মানুষের প্রাণহানি

কেরালা ২৮ আগস্ট (এ.এন.ই ): চলতি মৌসুমে বৃষ্টি, বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনায় ভারতের ৮টি রাজ্যে প্রায় ১৩শ’মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। এর মধ্যে সর্বাধিক ৪৪৩ জনের প্রাণহানি হয়েছে দক্ষিণের রাজ্য কেরালায়। যা থেকে রাজ্যের মানুষের এখনো পরিত্রাণ মেলেনি। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেওয়া সবশেষ তথ্যে এ চিত্র উঠে এসেছে। মন্ত্রণালয়ের জাতীয় জরুরি রেসপন্স সেন্টারের (এনইআরসি) দেওয়া তথ্যে জানানো হয়, কেরালায় এতো সংখ্যক মানুষের প্রাণহানির পাশাপাশি ১৪ জেলার ৫৪ লাখের বেশি মানুষ বৃষ্টি ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আর প্রায় অর্ধলাখ হেক্টর জমির পরিপক্ক ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগে উত্তর প্রদেশে প্রাণহানি হয়েছে ২১৮ জনের, পশ্চিমবঙ্গে ১৯৮ জনের, কর্ণাটকে ১৬৬ জনের, মহারাষ্ট্রে ১৩৯ জনের, গুজরাটে ৫২ জনের, আসামে ৪৯ জনের এবং নাগাল্যান্ডে ১১ জনের। এছাড়া চারটি রাজ্যে ৩৭ জন নিখোঁজের তথ্য জানা গেছে। যার মধ্যে কেরালায় ১৫ জন, উত্তর প্রদেশে ১৪ জন, পশ্চিমবঙ্গে পাঁচজন ও কর্ণাটকে তিনজন। আর বৃষ্টি সংক্রান্ত বিভিন্ন ঘটনায় আটটি রাজ্যে আহত হয়েছেন প্রায় সাড়ে তিনশ’মানুষ। এদিকে বৃষ্টি, বন্যায় ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেতে কেরালায় সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ আশ্রয় ক্যাম্পে অবস্থান করেছেন। তথ্যে আরো জানানো হয়, আসামে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা সাড়ে ১১ লাখ, রাজ্যে প্রায় ২৮ লাখ হেক্টরের জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে সোয়া দুই লাখ মানুষ বন্যার কবলে পড়েছেন, আর নষ্ট হয়েছে সাড়ে ৪৮ লাখ হেক্টর জমির ফসল। উত্তর প্রদেশে প্রায় তিন লাখ মানুষ বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় অর্ধলাখ জমির ফসল। কর্ণাটকে সাড়ে তিন লাখ মানুষ বৃষ্টি, বন্যা ও ভূমিধসের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। রাজ্যে নষ্ট হয়েছে সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমির ফসল। অন্যদিকে কেরালায় স্মরণকালের ভয়াবহ এ বন্যাকে প্রাকৃতিক বিপর্যয় হিসেবেই দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এ বিষয়ে উন্নত রাষ্ট্রগুলো জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ না নিলে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা করেছেন তারা।

28-08-2018 05:15:12 pm


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.